সোমবার ৬ ডিসেম্বর, ২০২১ | ২১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮

ছাতক-দোয়ারা-সুনামগঞ্জ ২৯ কিলোমিটার রাস্তার বেহাল দশা

ছাতক সংবাদদাতা,সংবাদমেইল২৪.কম | বুধবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৬ | প্রিন্ট  

ছাতক-দোয়ারা-সুনামগঞ্জ ২৯ কিলোমিটার রাস্তার বেহাল  দশা

সুনামগঞ্জ: দীর্ঘ প্রায় ৫বছর ধরে ছাতক-দোয়ারা-সুনামগঞ্জ সড়কের ৪কিলোমিটার রাস্তার কোন সংষ্কার কাজ হয়নি। ফলে সড়কের পিচ ভেঙ্গে গেছে, পাথর-ইট উঠে তৈরী হয়েছে অসংখ্য ছোট-বড় গর্তের। উচু-নিচু এই রাস্তা দিয়ে যানবাহন চলছে হেলে-দুলে। ছাতক থেকে দোয়ারাবাজার হয়ে সুনামগঞ্জ জেলা সদরের দূরত্ব ৩৮কিলোমিটার যেতে ৩০মিনিটের পরিবর্তে সময় লাগছে প্রায় দেড় ঘন্টা। রাস্তা সংস্কারের বিষয়ে জনপ্রতিনিধিরা নানা আশ্বাসের বানী দিলেও বাস্তবে কোন কাজই করা হচ্ছে না। সংস্কার হবে, হচ্ছে করেই সময় চলে যাচ্ছে।

সড়কের দোয়ারাবাজারের জালালপুর গ্রাম থেকে কাটাখালি বাজার পর্যন্ত ৪কিলোমিটার ও সুনামগঞ্জ সদর এলাকার শান্তিপাড়া গ্রামের ব্রীজ থেকে ব্রাস্মনগাঁও পর্যন্ত রাস্তার অবস্থা বেহাল দশা। এ সড়কের অধিকাংশ ব্রীজ গুলোর সংযোগ সড়ক দেবে গিয়ে মারাত্মক ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। চালকরা নিজ উদ্যোগে ব্রীজ সচল রাখতে সংযোগ স্থলে বালি-মাটি দিয়েও কোন লাভ হচ্ছে না। ২/৩দিন পর সেই বালি-মাটি সরে যাচ্ছে।


যার ফলে অনেক সময়ই অটোরিক্সা, টেম্পু, লেগুনা ব্রীজ অতিক্রম করার সময় চালক যাত্রীদের গাড়ী থেকে নামিয়ে দিতে হচ্ছে। এ সড়কের মনোহরপুর, মাইজবাড়ী, শেখেরগাঁও, ধনপুর ও অচিন্তপুর এলাকায় ছোট-বড় খানা-খন্দ যাত্রীদের দূর্ভোগের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছে।

‘গাড়ীত ঔইঠা বইলে বুক দরফর করে, মনে হয় ঔবুঝি গাড়ী উল্টি যাইবো। রাস্তার এই দুরাবস্থা, সরকারি খরমো খরতারা কিতা খরইন বুঝরাম না। ইটা বুঝি সরকারের ডিজিটাল রাস্তার। দেশও বেড়ানিত আইছলাম আর থাকার ইচ্ছা নাই, তারাতারি জাইমোগি’। ছাতক থেকে সিএনজি চালিত একটি অটোরিক্সায় করে সুনামগঞ্জ জেলা সদরে যাবার পথে ৬৫বছর বয়সী যুক্তরাজ্য প্রবাসী রহিমা বেগম ক্ষোভ প্রকাশ করেই এ রকম মন্তব্য করেছেন।


প্রতাপপুর গ্রামের ব্যবসায়ী শাহিন মিয়া সংবাদমেইলকে বলেন, প্রায় ৫বছর আগে একবার সড়ক সংস্কারের কাজ হয়েছিল। এরপর আর কোন সংস্কার কাজ করা হয়নি। একাধিকবার বন্যায় সড়কের বিভিন্ন স্থানে মারাতœক ক্ষতি হলেও এসব দেখার যেন কেই নেই।

অচিন্তপুর গ্রামের আরব আলী সংবাদমেইলকে বলেন, ‘খারে খইতাম ভাই, ফরতিদিন এই সড়ক দিয়া ছোট-বড় অনেক অফিসার সুনামগঞ্জ আইন-যাইন। তারা কিতা রাস্তার অউ অবস্তা দেখরানানি।’ এই সড়কে নিয়মিত যাতায়াতকারী অটোরিক্সা চালক ছাতকের গণক্ষাই এলাকার সায়েদ মিয়া বলেন, রাস্তার এই অবস্থার কারনে গাড়ী প্রায় সময় নষ্ট হয়ে যায়। গাড়ী মেরামত করতে গিয়ে অনেক টাকা খরচ করতে হয়। চলন্ত অবস্থায় গাড়ী নষ্ট হলে যাত্রীরা পড়েন ভোগান্তিতে। প্রায় সময়ই গাড়ী উল্টে গিয়ে ঘটে দূর্ঘটনা।


দোয়ারাবাজারের পান্ডারগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু হেনা আজিজ বলেন, দোয়ারাবাজারের মানুষের জেলা শহরের যাতায়তের একমাত্র রাস্তা এটি। ছাতকের বেশীর ভাগ যাত্রীরাও এ সড়কে জেলা সদরে যাতায়াত করে থাকেন। রাস্তার দূরাবস্থার কারনে প্রতিনিয়তই যাত্রী সাধারনের দূর্ভোগ বাড়ছে। সড়ক সংস্কারের ব্যাপারে মাসিক সমন্বয় সভায় একাধিকবার আলোচনা করা হলেও আশ্বাস মিলছে, কাজ করার কোন উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না।
দোয়ারাবাজার স্থানীয় সরকার বিভাগের উপজেলা প্রকৌশলী ফজলুর রহমান সংবাদমেইলকে বলেন, সড়কটি এক সময় স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী (এলজিইডি) এর অধীনে ছিল। ২০১৪ সালে সুনামগঞ্জ থেকে কাটাখালী বাজার পর্যন্ত ১৫কিলোমিটার সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। সড়ক সংস্কারে আমাদের কোন কিছু করার নেই।

সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম সংবাদমেইলকে বলেন, সড়ক সংস্কারের ব্যাপারে আপতত কোন প্রকল্প হাতে নেই। তবে মানুষের দূর্ভোগ কমাতে নিয়মিত রক্ষানাবেক্ষনের অংশ হিসেবে কিছু কাজ করা হবে। পরবর্তীতে পূরো কাজের প্রকল্প হাতে নেয়া হবে।

সংবাদমেইল২৪.কম/বা/নাশ

Facebook Comments Box

Comments

comments

advertisement

Posted ১২:২৮ অপরাহ্ণ | বুধবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৬

সংবাদমেইল |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

সম্পাদক ও প্রকাশক : মো. মানজুরুল হক

নির্বাহী সম্পাদক: মো. নাজমুল ইসলাম

বার্তা সম্পাদক : শরিফ আহমেদ

কার্যালয়
উপজেলা রোড, কুলাউড়া, মেলভীবাজার।
মোবাইল: ০১৭১৩৮০৫৭১৯
ই-মেইল: sangbadmail2021@gmail.com

sangbadmail@2016 কপিরাইটের সকল স্বত্ব সংরক্ষিত