রবিবার ২৮ নভেম্বর, ২০২১ | ১৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮

সাড়ে ৪০০ যমজ সন্তানের গ্রাম!

অনলাইন ডেস্ক : | সোমবার, ০৮ নভেম্বর ২০২১ | প্রিন্ট  

সাড়ে ৪০০ যমজ সন্তানের গ্রাম!

ভারতের কেরালার কোদিনহি গ্রামের মতো আশ্চর্য স্থানের কথা বলতে বসলে শেকসপিয়রের কথা মনে পড়ে যেতে বাধ্য। হ্যাঁ, এই গ্রামে আপনি বেড়াতে এলে আবিষ্কার করবেন, আসতে যেতে বহু যমজ মানুষ ঘুরে বেড়াচ্ছেন! ভারতে প্রতি ১ হাজার নবজাতকের মধ্যে ৯ জোড়া যমজ সন্তান। অথচ কেরালার এই গ্রামে তা প্রতি হাজারে ৪৫! আয়তনে ছোট এই গ্রামে অন্তত ৪০০ জোড়া যমজ মানুষ বাস করেন। এমন অদ্ভুত পরিসংখ্যানে বিস্মিত গোটা বিশ্ব।
আপনি যদি কোদিনহি গ্রামে বেড়াতে আসেন, তাহলে প্রবেশের সময়ই আপনার চোখে পড়বে ‘ঈশ্বরের আপন যমজদের দেশে স্বাগত’। কোচি থেকে ১৫০ কিমি দূরে অবস্থিত এই গ্রামে ২ হাজার পরিবারের বাস। সমুদ্রের পাড়ে অবস্থিত ছোট গ্রামটি চেহারা, চরিত্রে কেরালার যে কোনো গ্রামের মতোই প্রকৃতির আশীর্বাদে পুষ্ট। পাশাপাশি রয়েছে আরও এক আশ্চর্য আশীর্বাদ।
২০১৭ সালের হিসেবে ৪০০ জোড়া যমজ মানুষ থাকেন গ্রামে। আরেক সংবাদমাধ্যমের হিসেব বলছে, এখন তা বেড়ে ৪৫০ জোড়া হয়েছে। স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন জাগে, এমন কেন? কেন এমন এই গ্রামে যমজদের এমন অবিশ্বাস্য আধিক্য?
কেরালার এই গ্রাম ঘিরে বিস্ময়ের সীমা নেই:
এখন পর্যন্ত কোনো কারণ খুঁজে পাননি বিজ্ঞানীরা। ২০১৬ সালের অক্টোবরে গবেষকদের এক দল এসেছিল কোদিনহি গ্রামে। হায়দরাবাদের সিএসআইআর-সেন্টার ফর সেলুলার অ্যান্ড মলিকিউলার বায়োলজি, কেরালা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারিজ অ্যান্ড ওশান স্টাডিজ থেকে শুরু করে লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় ও জার্মানি থেকে গবেষকরা এসেছিলেন। তারা এই গ্রামের বহু যমজের শরীর থেকে লালারস ও চুলের নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে গিয়েছিলেন।
কিন্তু নমুনা সংগ্রহ করে দীর্ঘ গবেষণা চালিয়েও এখন পর্যন্ত বিজ্ঞানীরা কোনো সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পারেননি। তবে কয়েকটি কারণের কথা ভেসে উঠেছে। তবে তার সঙ্গে বৈজ্ঞানিক তথ্যপ্রমাণের কোনো সম্পর্ক নেই। কোনো কোনো চিকিৎসকের অনুমান, জিনগত কারণ হয়তো রয়েছে। কিন্তু সেই সঙ্গে এমন কথাও উঠে এসেছে, যে এই গ্রামের পানি ও বাতাসে এমন কোনো উপাদান হয়তো রয়েছে যা অনুঘটক হয়ে উঠেছে। সেই সঙ্গে গ্রামবাসীদের খাদ্যাভ্যাস থেকে আরও নানা রকম ব্যাখ্যা রয়েছে।
কিন্তু শেষ পর্যন্ত ধাপে টিকতে পারেনি একটিও। রহস্যের কুয়াশা থেকেই গেছে ঈশ্বরের আপন দেশের এই আশ্চর্য গ্রামের ওপরে।
যেভাবে প্রথমবার বিষয়টি সামনে এলো
গ্রামের এক যমজ বোনই প্রথম আবিষ্কার করে বিষয়টা। তারা জানতে পারে তাদের স্কুলেই রয়েছে ২৪ জোড়া যমজ। স্বাভাবিক ভাবেই তা জানাজানি হওয়ার পরে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা শুরু হয়। আস্তে আস্তে পরিষ্কার হয়ে যায় ওই গ্রামে মোট ২৮০ জোড়া যমজ রয়েছে।
এই গ্রামের যমজ রহস্যের আজও সমাধান হয়নি
তবে কোদিনহিই একমাত্র গ্রাম নয় যেখানে যমজ রহস্য এমন কুয়াশা তৈরি করেছে। নাইজেরিয়ার ইগবো ওরা, ব্রাজিলের ক্যানডিডো গোডোই ও ভিয়েতনামের হাং লক কমিউনে এমনই যমজ আধিক্যের বিস্ময় রয়েছে। এর মধ্যে ইগবো ওরাকে বলা হয় ‘পৃথিবীর যমজ রাজধানী’। নাম থেকেই পরিষ্কার এখানেও বিস্ময় কিছু কম নেই।
বিবিসির এক প্রতিবেদন সূত্র থেকে জানা যাচ্ছে, এই গ্রামে একটি পরিবারেই তিন বা তারও বেশি যমজ রয়েছে। পরিস্থিতি এমনই দাঁড়িয়েছে, গ্রামে কোনো পরিবারে যমজ সন্তান না থাকলে সেটাই অস্বাভাবিক বলে ধরে নেওয়া হয়।
পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় টুরিস্ট স্পট হয়ে উঠেছে কোদিনহি:
বিজ্ঞানীরা আজও খুঁজে চলেছেন কারণ। হয়তো একদিন এই রহস্যেরও সমাধান হবে। যেভাবে আরও কঠিন ধাঁধারও সমাধান করেছে বিজ্ঞান। কিন্তু তা খুঁজে পেতে যতদিনই সময় যাক, ইতোমধ্যেই পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় স্থান হয়ে উঠেছে কোদিনহি। যে গ্রাম এমনিতে রাজ্যের অন্য গ্রামগুলোর মতোই। কিন্তু সামান্য খেয়াল করলেই পথেঘাটে দেখা মিলবে যমজ মানুষদের। সেই বিস্ময়ের অনুভূতির কাছে বারবার ফিরতে চান পর্যটকরা।

-সূত্র : সময় নিউজ


Facebook Comments Box


Comments

comments

advertisement

Posted ৯:২৬ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ০৮ নভেম্বর ২০২১

সংবাদমেইল |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

সম্পাদক ও প্রকাশক : মো. মানজুরুল হক

নির্বাহী সম্পাদক: মো. নাজমুল ইসলাম

বার্তা সম্পাদক : শরিফ আহমেদ

কার্যালয়
উপজেলা রোড, কুলাউড়া, মেলভীবাজার।
মোবাইল: ০১৭১৩৮০৫৭১৯
ই-মেইল: sangbadmail2021@gmail.com

sangbadmail@2016 কপিরাইটের সকল স্বত্ব সংরক্ষিত