সোমবার ২৪ জানুয়ারি, ২০২২ | ১০ মাঘ, ১৪২৮

শ্রমিক আটকে মহাসড়ক অবরোধ ও অগ্নি সংযোগ রাতভর উত্তেজনা

বিশেষ প্রতিনিধি,সংবাদমেইল২৪.কম | রবিবার, ০৪ মার্চ ২০১৮ | প্রিন্ট  

শ্রমিক আটকে মহাসড়ক অবরোধ ও অগ্নি সংযোগ রাতভর উত্তেজনা

সিলেটের ওসমানীনগরে পুলিশ হাতে এক মাইক্রোবাস শ্রমিক আটক ও মারধরে ঘটনায় শনিবার রাত ৮টা থেকে রাত ৪টা পর্যন্ত পরিবহন শ্রমিকরা তিন দফায় প্রায় ৫ ঘন্টা ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে।

এসময় আটক শ্রমিকের মুক্তি ও ঘটনার সাথে জড়িত ওসমানীনগর থানার এস আই বাদল মিয়ার শাস্তির দাবিতে স্থানীয় পরিবহন শ্রমিকরা মহাসড়কের গোয়ালা বাজার এলাকায় গাছ ফেলে বিক্ষোভ প্রদর্শন ও টায়ারে জালিয়ে অগ্নি সংযোগ করে। শ্রমিকদের অগ্নি সংযোগের ঘটনায় মহাসড়কের পাশ্ববর্তী বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। অবরোধ কালে মহাসড়কের দু’দিকে দুরপাল্লার কয়েক সহশ্রাধিক যানবাহন আটকা পড়ে।এতে যাত্রী সাধারণ চরম ভাবে ভোগান্তির শিকার হন।


শনিবার বিকেল তিনটার দিকে ওসমানীনগরের গোয়ালাবাজার মাইক্রোবাস স্ট্যান্ড এলাকায় একটি জুয়ার আসরে অভিযান করেন ওসমানীনগর থানার এসআই বাদল মিয়া। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে জোয়াড়ীরা পালিয়ে যায়। এসময় জোয়াড়ীদের ধরতে না পেরে পশ্রাব করার জন্য ওই স্থানটিতে যাওয়া মাইক্রোবাস শ্রমিক লিটন মিয়াকে (৩০) আটক করে পুলিশ। আটকের পর মাইক্রোবাস শ্রমিক সমিতির অফিসে নিয়ে তাকে মারধর করেন এস আই বাদল মিয়া এমন অভিযোগ শ্রমিকদের। এতে শ্রমিকরা ক্ষিপ্ত হয়ে এক পুলিশ সদস্যকে অবরোদ্ধ করে তারা মহাসড়ক অবরোধ অব্যাহত রাখে। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে লিটন মিয়া জুয়া খেলার সাথে জড়িত ছিল এবং পালিয়ে যাওয়া জোয়াড়ীদের নাম ঠিকানা নিশ্চিত হওয়ার জন্যই তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

এদিকে ওসমানীনগর থানার ওসি ঘটনাস্থলে গিয়ে আটক হওয়া লিটনকে ছেড়ে দেয়ার আশ্বাস প্রদান করলে শ্রমিকরা অবরোদ্ধ পুলিশ সদস্যকে ছেড়ে দিয়ে মহাসড়ক থেকে অবরোধ তুলে নেয়। পরবর্তীতে রাত সাড়ে সাতটার দিকে থানায় যোগাযোগ করা হলে লিটনকে ছেড়ে না দেয়ার কথা জানান ওসি। এতে শ্রমিকরা উত্তেজিত হয়ে রাত ৮টার দিকে মহাসড়কের গোয়ালাবাজার এলাকায় গাছ ফেলে সড়ক অবরোধ করে রাখে।


স্থানীয়রা জানান, শ্রমিকরা লাঠিসোটা হাতে নিয়ে মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে শ্রমিকরা সড়কের উপরে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে আটক হওয়া লিটনের মুক্তি ও এসআই বাদলের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেনা। অবরোধ চলাকালে মহসাড়কের দুই দিকে দূর পাল্লার যানবাহনসহ কয়েক হাজার যানবাহন আটকা পড়ে। এতে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয় যাত্রী সাধারণের। রাত এগারোটার দিকে স্থানীয় নেতাকর্মীদের সমঝোতায় আটক লিটনকে ছেড়ে দেয়ার আশ্বাস প্রদান করা হলে অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয় বিক্ষোদ্ধ শ্রমিকরা। পরবর্তীতে রাত ১টা পর্যন্ত পুলিশের হাতে আটক হওয়া লিটনকে ছেড়ে না দেয়ায় রাত দেড়টায় দিকে তৃতীয় দফায় মহাসড়কে টায়ার পুড়িয়ে অগ্নি সংযোগ ও অবরোধ করে শ্রমিকরা। অবশেষে রাত প্রায় সাড়ে ৩টার দিকে পুলিশের হাতে শ্রমিক লিটন মিয়াকে পুলিশ ছেড়ে দিতে বাধ্য হলে শ্রমিকরা অবরোধ তুলে নেয়।

গোয়ালাবাজার মাইক্রোবাস শ্রমিক উপ-কমিটির সভাপতি কাপ্তান মিয়া বলেন, পুলিশ একটি জোয়ার আসরে অভিযান চালালে জোয়াড়ীরা পালিয়ে যায়। কিন্তু ঘটনাস্থলের নিকটবর্তী পরিত্যাক্ত স্থানে পশ্রাব করতে যাওয়া শ্রমিক লিটনকে ধরে বেদম প্রহার করে তাকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।


এই ঘটনার প্রতিবাদে শ্রমিকরা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে এবং এসআই বাদলের প্রত্যাহার দাবি করে। অবশেষে তিন দফা অবরোধের পর রাত সাড়ে ৩টার দিকে আটকৃত লিটনকে পুলিশ ছেড়ে দিয়ে এস আই বাদলকে ক্লোজ করার আশ্বাস দিলে শ্রমিকরা অবরোধ তুলে নেয়।

ওসমানীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ সহিদ উল্যা বলেন, আটক হওয়া লিটন জোয়া খেলার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে জোয়া আইনের ৩-৪ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়।

এ ঘটনায় মাইক্রোবাস শ্রমিকরা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। এক পর্যায়ে থানা হাজতে থাকা আটককৃত লিটন অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে ভোর রাতে জামিনে ছেড়ে দেয়া হয়। এস আই বাদল মিয়াকে প্রত্যাহারের বিষয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে কোনো আশ্বাস দেয়া হয়নি বা কোনো পুলিশ সদস্য শ্রমিকদের হাতে অবরোদ্ধও হয়নি।

সংবাদমেইলে/জেএইচজে

Facebook Comments Box

Comments

comments

advertisement

Posted ৯:০১ অপরাহ্ণ | রবিবার, ০৪ মার্চ ২০১৮

সংবাদমেইল |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

সম্পাদক ও প্রকাশক : মো. মানজুরুল হক

নির্বাহী সম্পাদক: মো. নাজমুল ইসলাম

বার্তা সম্পাদক : শরিফ আহমেদ

কার্যালয়
উপজেলা রোড, কুলাউড়া, মেলভীবাজার।
মোবাইল: ০১৭১৩৮০৫৭১৯
ই-মেইল: sangbadmail2021@gmail.com

sangbadmail@2016 কপিরাইটের সকল স্বত্ব সংরক্ষিত