মঙ্গলবার ১৭ মে, ২০২২ | ৩ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯

কুলাউড়ায় বিদ্যালয়ের জায়গা দখলে মরিয়া প্রভাবশালী পরিবার!

স্টাফ রিপোর্টার,সংবাদমেইল২৪.কম | রবিবার, ০১ মার্চ ২০২০ | প্রিন্ট  

কুলাউড়ায় বিদ্যালয়ের জায়গা দখলে মরিয়া প্রভাবশালী পরিবার!

কুলাউড়ার কর্মধায় উত্তর পূর্ব ফটিকগুলি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গা দখল করে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী পরিবার। বিদ্যালয়টি রক্ষার জন্য স্থানীয় অভিবাবক ও বিভিন্ন শ্রেনীপেশার নেতৃবৃন্দরা প্রতিবাদ জানালে তাদের নামে বার বার মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করছে ওই প্রভাবশালী পরিবার। স্কুলের লেখাপড়া নিয়ে শংকিত আছেন কোমলিত ছাত্র-ছাত্রীসহ এলাকাবাসী।

স্থানীয় এলাকা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার কর্মধা ইউনিয়ের পূর্ব ফটিগুলি গ্রামবাসীর উদ্যোগে ২০০৪ সালে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মান করা হয়। সেই সময় তৎকালীন এমপি এম এম শাহীন ওই স্কুলের উদ্বোধন করেন। টানা ৩ বছর স্কুলটি চলার পর আর্থিক সমস্যায় পড়লে এনজিও সংস্থা ব্র্যাককে স্কুল পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হয়। ব্র্যাক কতৃপক্ষ প্রায় ১২ বছর স্কুল পরিচালনা করে তাদের চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় তারা স্কুলের কার্যকম বন্ধ করে চলে যায়।


মধ্যে খানে কয়েক মাস স্কুলের কার্যকম বন্ধ থাকায় স্কুলের পাশ্ববর্তী বাড়ির মৃত নিয়ামত আলীর পুত্র হাসান আলী, তার পুত্র সোহেল রানা ও একই বাড়ীর ফজলু মিয়া গংরা মিলে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে শিক্ষা বিভাগ মৌলভীবাজার এর নামে ফর্সায় রেকর্ডকৃত স্কুলের ৩৩ শতক জায়গা দখল করে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। যদিও মৃত নিয়ামত আলী সেই সময় স্কুল প্রতিষ্টার জন্য ৬ শতক ভূমি দিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁর পুত্র ও নাতিদের এমন কান্ডে এলাকার মানুষ ও ছাত্র ছাত্রীরা তীব্র প্রতিবাদ জানায় এবং আন্দোলনের ঘোষনা দেয়। মূলত এরপর থেকে তাদেরকে কোনাটাসা করতে হাসান আলী গংরা বার বার বিভিন্ন মিথ্যা মামলা দিয়ে এলাকার মানুষকে হয়রানী শুরু করে।

প্রথমে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও ভূমিদাতা হারিছ আলী ও স্কুলের সাবেক শিক্ষক সুরুজ আলী সহ এলাকার ১৪ জনকে আসামী করে মৌলভীবাজার আদালতে চলতি বছরের ১ জানুয়ারী একটি ফৌজদারি মামলা নং (৪)দায়ের করেন। পরবর্তীতে হিংসার ভষিভূত হয়ে তারা আবারো এলাকার লোকজনকে ঘায়েল করতে মৌলভীবাজার আদালতে (১০৭) ধারায় হারিছ আলী ও মাষ্টার সুরুজ আলী সহ ৮ জনকে আসামী করে গত ১৪ ফেব্রুয়ারী আরেকটি মামলা (নং ৩৬) দায়ের করেছেন।


এ ব্যাপারে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও ভূমিদাতা হারিছ আলী বলেন, হাসান আলী গংরা কখনো চায়না এখানে স্কুল প্রতিষ্টা হোক, তাই তারা বার বার মিথ্যা মামলা দিয়ে এলাকার সাধারন মানুষকে হয়রানী করে যাচ্ছে। বর্তমানে স্কুলে প্রায় ৬৫ জন ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়মিত ক্লাস নিচ্ছেন ৩ জন শিক্ষক। তাদের উদ্দেশ্য হলো মামলা দিলে কেউ ভয়ে স্কুলের পক্ষে কথা বলতে না পারে। অভিযুক্ত হাসান আলীর সাথে মুঠোফোনে বারবার যোগাযোগ করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

স্থানীয় কর্মধা ইউপি চেয়ারম্যান এম এ রহমান আতিক বিষটির সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এখানে পূর্ব ফটিকগুলি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নামে রেকর্ডকৃত একটি স্কুল রয়েছে। উপজেলা আওয়ামীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম রেনু সহ আমাদের উপস্থিতিতে গত জানুয়ারী মাসে এই স্কুলের ছাত্র ছাত্রীদের মধ্যে নতুন বই বিতরণ করা হয়। একটি পক্ষ চাচ্ছে না এখানে স্কুল হোক।


Facebook Comments Box

Comments

comments

advertisement

Posted ৫:৫৪ অপরাহ্ণ | রবিবার, ০১ মার্চ ২০২০

সংবাদমেইল |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

সম্পাদক ও প্রকাশক : মো. মানজুরুল হক

নির্বাহী সম্পাদক: মো. নাজমুল ইসলাম

বার্তা সম্পাদক : শরিফ আহমেদ

কার্যালয়
উপজেলা রোড, কুলাউড়া, মেলভীবাজার।
মোবাইল: ০১৭১৩৮০৫৭১৯
ই-মেইল: sangbadmail2021@gmail.com

sangbadmail@2016 কপিরাইটের সকল স্বত্ব সংরক্ষিত