রাজনগর উপজেলা পরিষদ ও সাব-রেজিস্ট্রার অফিসে নেই গণসৌচাগার:দূর্ভোগে সেবাপ্রার্থীরা

আহমদউর রহমান ইমরান, রাজনগর (মৌলভীবাজার) থেকে : | ০২ মার্চ ২০১৮ | ৮:৪২ অপরাহ্ণ
অ+ অ-

মৌলভীবাজারের রাজনগরে উপজেলার সাব-রেজিস্ট্রারী অফিসে গণসৌচাগার না থাকায় দূর্ভোগে আছেন জমি ক্রয়-বিক্রয় ও উপজেলা পরিষদে আসা সাধারণ মানুষ। এতে পূরুষদের পাশাপাশি প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে নারী সেবাপ্রার্থীরা সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়েন। বিষয়টি সংশিøষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরে এলেও দীর্ঘদিন থেকে এর কোন সুরাহা হচ্ছে না।

এ ব্যাপারে সচেতন নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে সাব-রেজিস্ট্রারের কাছে লিখিত আবেদন দিলেও তিনি তা গ্রহণ করেন নি।



লিখিত আবেদন ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, রাজনগর উপজেলা পরিষদ, সাব-রেজিস্ট্রারী কার্যালয় ও সরকারী অন্যান্য অফিস পরিষদের আশেপাশে অবস্থিত। অফিস চলাকালীন সময়ে পরিষদের বিভিন্ন দপ্তর বিশেষ করে সাব-রেজিস্ট্রারী অফিসে প্রতিদিন শত শত নারী-পূরুষ সেবা গহণের জন্য আসেন।

প্রতি সপ্তাহে সোম, মঙ্গল ও বুধবার জমি ক্রয়-বিক্রয়ের রেজিস্ট্রারী হয়ে থাকে। এ তিন দিন উপজেলা পরিষদে সাধারণ মানুষের ভীড় লেগে থাকে। সরকারী বিভিন্ন দপ্তরের নিজস্ব সৌচাগান ব্যবস্থা থাকলেও সাধারণ নারী-পূরুষের জন্য এর কোন ব্যবস্থা নেই। অফিসগুলোর সৌচাগারও সাধারণ মানুষের জন্য উন্মোক্ত থাকে না। ফলে সেবাপ্রার্থী নারী-পূরুষ প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে পড়েন মহা বিপাকে। বিশেষ করে নারীরা পড়ের বিপাকে। সাধারণ মানুষের সৌচাগারের ব্যবস্থা করণের জন্য সচেতন নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রারের নিকট লিখিত আবেদন দিলেও তা গ্রহণ না করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট জমাদানের পরামর্শ দেন।

এব্যাপারে ফতেহপুর ইউনিয়নের মোকামবাজারের জুলেখা বেগম (৫০) বলেন, আমি জমি বিক্রি করার জন্য তিন সপ্তাহ ধরে উপজেলা পরিষদে আসছি।

(২৮ ফেব্রুয়ারী)বুধবার টয়লেটের চাপ পড়ে। কিন্তু টয়লেটের কোন ব্যবস্থা না পেয়ে মারাত্মক সমস্যায় পড়ি। পরে পাশের একটি বাড়িতে গিয়ে সমস্যার সমাধান করি।

সচেতন নাগরিক সমাজের যুগ্ন সম্পাদক ফুয়াদ আহমদ মুরাদ বলেন, উপজেলা পরিষদ ও সাব-রেজিস্ট্রারী কার্যালয়ে গণসৌচাগারের সমস্যা দীর্ঘ দিনের। সৌচাগারের দাবীতে গণস্বাক্ষর নিয়ে একটি আবেদন নিয়ে গিয়েছিলাম সাবরেজিস্ট্রারের কাছে। কিন্তু তিনি তা গ্রহণ না করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট জমাদানের পরামর্শ দিয়েছেন।

সাব-রেজিস্ট্রার মো. আনছার উদ্দীন বলেন, পরিষদের কর্তা উপজেলা নির্বাহী অফিসার। বিষয়টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সঙ্গে আলোচনা করেছি। তিনি এব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।

রাজনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুজ্জামান পাভেল বলেন, বিষয়টি আমার নজরে এসেছে। একটি পূরুষ ও একটি নারী গণসৌচাগার করার চেষ্টা করছি।

সংবাদমেইল২৪.কম/এনআই

Comments

comments

পড়া হয়েছে 3342 বার
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
x