যৌতুক লোভী স্বামীর নির্যাতনে ৪ সন্তানের জননীর মানবেতর জীবন-যাপন

বিশেষ প্রতিনিধি,সংবাদমেইল২৪.কম | ২৫ আগস্ট ২০১৯ | ৫:৪৯ অপরাহ্ণ
অ+ অ-

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় যৌতুক লোভী স্বামীর নির্যাতনে ৪ সন্তানের জননী সুরবীন আক্তার চরম মানবেতর জীবন-যাপন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অবুঝ ৩ সন্তানদেরকে নিয়ে অসুস্থ পিতা-মাতার বাড়িতে কোন রকম দিন কাটাচ্ছেন। পড়ালেখা থেকে বঞ্ছিত সুরবীনের মেয়ে ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রী ফারজানা জান্নাত।

এদিকে যৌতুকের দাবীতে স্বামীর নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে স্ত্রী সুরবীন আক্তার যৌতুক বিরোধ আইনের ৩ ধারায় স্বামী আব্দুল আহাদ জয়নাল, চাচা শশুর আব্দুল মছব্বির, আজাদ মিয়া, মশাহিদ মিয়া ও ছয়ফুল মিয়াকে আসামী করে একটি মামলা (নং ১২৯/২০১৯ইং) দায়ের করেন।

মামলার প্রেক্ষিতে ১৫ আগস্ট বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় কুলাউড়া থানার এএসআই এরশাদ স্থানীয় টিলাগাঁও বাজার থেকে ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী সুরবীনের স্বামী আব্দুল আহাদ জয়নালকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।

মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে- কুলাউড়া উপজেলার টিলাগাঁও ইউনিয়নের বাগৃহাল গ্রামের মৃত আব্দুল মন্নানের ছেলে আব্দুল আহাদ জয়নাল মিয়ার সাথে ২০০৮ সালের ২৩ মে ইসলামী শরিয়ত বিধান মতে রাজনগর উপজেলার আদমপুর গ্রামের ওসমান আলীর মেয়ে সুরবীন আক্তারের সাথে বিবাহ হয়। দাম্পত্য জীবনে তাদের ৪টি সন্তান রয়েছে। জয়নাল দীর্ঘদিন মধ্যপ্রাচ্যের ওমানে ছিলেন। সুরবীন অভিযোগ করে বলেন, দেশে আসার পর যৌতুক হিসাবে ৩ লক্ষ টাকা সুরবীনের পিত্রালয় থেকে এনে দেয়ার জন্য প্রায় সময় তাকে শারিরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করতেন।

সুরবীন আরো জানায়, বিয়ের পর স্বামী-স্ত্রী অত্যন্ত শান্তিতে দাম্পত্য জীবন কাটালেও গত প্রায় ১ বছর যাবৎ স্বামীর চলাফেরায় তার সন্দেহের সৃষ্টি হয়। সুরবীনের ধারণা, স্বামী জয়নাল পরক্রীয়ার সাথে লিপ্ত হওয়ায় পরিবারে একেবারেই সময় দিতেন না। এমনকি পরিবারে নিত্য প্রয়োজনীয় কোন জিনিসই আনতেন না। অনেক সময় না খাইয়েও থাকতে হয়েছে তাকে।

প্রায় মাস তিনেক আগে দাবীকৃত যৌতুকের টাকা নিয়ে আসতে জোরপূর্বক তাকে বাপের বাড়ি রাজনগর উপজেলার আদমপুর গ্রামে পাঠানো হয়। কিন্তু বাপের বাড়ির আর্থিক অবস্থা খারাপ থাকায় যৌতুকের টাকা পরিশোধে অপারগতা প্রকাশ করেন সুরবীন। এতে আব্দুল আহাদ স্ত্রী সুরবীনকে তালাক দেন।

সুরবীন আক্তার জানান, এরপরও ছোট্ট সন্তানদেরকে নিয়ে স্বামীর বাড়িতে আসতে স্থানীয় টিলাগাঁও ইউপির চেয়ারম্যানসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরি। কয়েকবার সমঝোতা বৈঠকও হয়েছে। কিন্তু তাতেও স্বামীর বাড়ির লোকজনের মন গলাতে পারেননি। বর্তমানে তিনি ৩ সন্তানকে নিয়ে গরীব পিতার বাড়িতে অর্ধাহারে সময় পার করছেন। ৭ বছরের ছেলে জিহাদুল ইসলামকে স্বামী জয়নাল তার বাড়িতে আটকিয়ে রেখেছেন। ছেলেকে দেখতে মা সুরবীন পাগল প্রায়। কিন্তু দেখাতে দেওয়া হচ্ছে না। এদিকে ছেলেকে আটকিয়ে রাখায় গত ২১ আগস্ট মা সুরবীন তার ছেলে জিহাদুল ইসলামকে পেতে মৌলভীবাজার আদালতে স্বামী জয়নালের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। সুরবীনের মা-বাবা আকুতি করে বলেন, ৩ সন্তানকে নিয়ে সুরবীন কোথায় যাবে ভেবে পাচ্ছেন না। তারা প্রশাসনের কাছে ন্যায় বিচার দাবী করেন।

টিলাগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের ৪নং ওয়ার্ডের সদস্য সুলতান মিয়া জানান, শুনেছি আব্দুল আহাদ জয়নাল তার স্ত্রী সুরবীন আক্তারকে তালাক দিয়েছে। এলাকার গণ্যমান্য লোকজনকে নিয়ে কয়েকবার আপোস-মীমাংসার জন্য বসেছিলাম কিন্তু মীমাংসা করতে পারিনি।

Comments

comments

পড়া হয়েছে 98 বার
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত