মনু,ধলাই খনন এবং বাঁধ নির্মাণের দাবিতে মৌলভীবাজারে অবস্থান কর্মসূচি

বিশেষ প্রতিনধি,সংবাদমেইল২৪.কম | ০৪ জুলাই ২০১৮ | ৪:৪০ অপরাহ্ন
অ+ অ-

মৌলভীবাজারকে ভাঙন ও দুর্ভোগ থেকে বাঁচাতে সরকারের প্রতি জোর দাবি জানিয়েছেন জেলার মনু ও ধলাই পাড়ের সর্বস্থরের জনসাধারণ।

(০৪ জুলাই) বুধবার পানি উন্নয়ন বোর্ড জেলা কার্যালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালনকালে এ দাবি জানান তারা। এসময় রাজনীতিক, আইনজীবী, ব্যবসায়ী, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ সর্বস্থরের জনসাধারণ উপস্থিত ছিলেন।



সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত চলমান এই অবস্থান কর্মসূচিতে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নেছার আহমদ, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, পৌর মেয়র মো. ফজলুর রহমান, প্রেসক্লাবের সভাপতি আব্দুল হামিদ মাহবুব, সাধারণ সম্পাদক সালেহ এলাহী কুটি প্রমুখ।

অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তারা জেলার বিভিন্ন উপজেলা দিয়ে প্রবাহিত মনু ও ধলাই নদী দিন দিন ভরাট হয়ে যাচ্ছে জানিয়ে বলেন নদীগুলো একটু ভরাট হয়ে গেলেই শক্ত প্রতিরক্ষা বাঁধ না থাকায় বন্যার সৃষ্টি হয়। এ বছর বন্যায় শহরাঞ্চলও প্লাবিত হয়েছে। দীর্ঘদিন যাবত দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। বক্তারা অভিযোগ করে বলেন বন্যার সময় সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা বাঁধ মেরামতের কথা জানালেও এখন পর্যন্ত দৃশ্যমান কোনো কাজই হচ্ছে না। এভাবে চলতে লাগলে প্রতিবছর জেলাবাসীকে ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়তে হবে। এ কারণে যত দ্রুত সম্ভব মনু ও ধলাই খনন ও স্থায়ীভাবে বাঁধ মেরামতের উদ্যোগ নেয়ার দাবি জানান। তারা বলেন আমরা আতঙ্ক আর দুর্ভোগ থেকে বাঁচতে চাই। এ জন্য স্থায়ী পদক্ষেপ নিন।

অবস্থান কর্মসূচিতে জেলার কুলাউড়া উপজেলার হাজিপুর ইউনিয়ন, রাজনগর উপজেলার কামারচাক ইউনিয়ন, কমলগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের বাসিন্দারা অংশ নেন।

অবস্থান কর্মসূচিতে সংহতি প্রকাশ করে পৌর মেয়র মো. ফজলুর রহমান বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে বন্যা সমস্যা সমাধানে ৬ সদস্যের কমিটি ঘটন করা হয়েছে। এই কমিটি ১ মাসের মধ্যে রিপোর্ট দিবে, সেই আলোকে প্রজেক্ট করা হবে। তিনি আরও বলেন ৮ মাস পূর্বে মনু নদীর ২৩ কিলোমিটার খননের জন্য বিআইডাব্লিইডি টেন্ডার পেয়েছে। কিন্তু ঠিকাদারের জটলার কারণে এই কাজ হচ্ছে না। তিনি নৌ মন্ত্রীর কাছে কাছে এই কাজ শুরুর জন্য অনুরোধ জানান।

মেয়র বলেন, পাউবোর ইঞ্জিনিয়ারের নেতৃত্বে রোববার ১১ সদস্যের দল মৌলভীবাজারে আসবে। প্রধানমন্ত্রীও মৌলভীবাজারের বন্যা সম্পর্কে ওয়াকিবহাল হয়েছেন। অনতিবিলম্বে বাঁধে কাজ শুরু হবে। সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকলে মনু নদী খনন হবে বলেও আশ্বাস দেন তিনি।

সংহতি প্রকাশকালে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নেছার আহমদ বলেন, বন্যা সমস্যা সমাধানের জন্য গত ২৩ জুন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় প্রধানমন্ত্রীর সামনে তিনি কথা বলেছেন। পরে প্রধানমন্ত্রী তাঁর সাথে ব্যক্তিগতভাবেও এই সমস্যার সমাধানে কথা বলেছেন। নেছার আহমদ আশ্বস্থ করে বলেন সরকার দ্রুত সময়ের মধ্যেই বন্যা সমস্যার সমাধান করবে।

মনু বাঁচাও, ধলাই বাঁচাও, বাঁচাও প্রতিবেশ স্লোগানে এই কর্মসূচিতে কয়ছর আহমদ ও আ.স.ম সালেহ সোহেলের পরিচালনায় সংগতি প্রকাশ করে জেলা বিএনপি, জেলা আ.লীগ, প্রেসক্লাব, আইনজীবী সমিতি, বিজনেস ফোরাম, ব্যাংক অফিসার অ্যাসোসিয়েশন, জাসদ, কমিউনিস্ট পার্টি, ওয়ার্কাস পার্টি, ছাত্রফ্রন্ট, বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ, দুর্জয় ক্লাবসহ নানা শ্রেণি পেশার মানুষ।

পরে ধলাই ও মনু খনন ও বাঁধ নির্মাণের দাবিতে ‘মনু ও ধলাই পাড়ের জনগোষ্টি’ সংগঠনের ১৫ সদস্যের সমন্বয় কমিটির মাধ্যমে জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি পেশ করা হয়।

Comments

comments

পড়া হয়েছে 279 বার
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত