কুলাউড়ায় রাস্তা জবর দখলকে কেন্দ্র করে পতিপক্ষের হামলায় আহত-৭

বিশেষ প্রতিনিধি,সংবাদমেইল২৪.কম | ০১ জানুয়ারি ২০২০ | ১১:২২ অপরাহ্ণ
অ+ অ-

কুলাউড়া উপজেলা কর্মধা ইউনিয়নের কর্মধা গ্রামে শতাধিক বছরের পুরুনো একটি রাস্তা জোর পূর্বক জবর দখল করেছে পাশ্ববর্তী বাড়ির লোকজন। হঠাৎ করে রাস্তা বন্ধের কৈফত চাইতে গেলে পতিপক্ষের হামলায় ৭ জন গুরুতর আহত হয়েছে।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, কর্মধা গ্রামের মৃত কটু মিয়া ও মৃত আব্দুস সত্তার শতাধিক বছর থেকে পাশাপাশি একই বাড়িতে বসবাস করে একই রাস্তা ব্যবহার করে আসছেন। এ দুজন মৃত্যু বরণ করার পর তাদের উত্তরাধিকারীরা দীর্ঘদিন থেকে সেই রাস্তা দিয়ে চলাচল করছেন। কিন্তু হঠাৎ করে পরিকল্পিতভাবে মৃত আব্দস সত্তারের পুত্র মনোয়ার হোসেন গংরা গত ৩১ ডিসেম্বর মঙ্গলবার যাতায়াতের সেই রাস্তাটি গাছ ফেলে বন্ধ করে দেয়।



এসময় রাস্তা বন্ধ দেখে মৃত কটু মিয়ার ছেলে ফিরুজ মিয়া ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা মনোয়ারের কাছে রাস্তা বন্ধের কারণ জানতে চাইলে মনোয়ার ও আফজল দুই ভাই মিলে তাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় হামলা দেখে ফিরুজ মিয়ার পরিবারের মহিলা সদস্যরা তাদেরকে বাঁচাতে এগিয়ে এলে রুজেল,আফজল,সাব্বির ও ফয়ছল দা এবং দেশিয় অস্ত্র নিয়ে এলোপাতাড়িভাবে হামলা চালাতে থাকে।

এসময় দার আঘাতে কটু মিয়ার মেয়ে কৈইতরী বিবি(৫৫) ও তার ভাই আব্দুল জব্বারের মাথা ও হাতে গুরুতর জখম হয়। এছাড়াও কটু মিয়ার নাতি আলাউদ্দিন ও তার চাচা মিলন মিয়া,বাড়ির মহিলা হাওয়া বেগম,সমিরন বেগম,সেলিনা বেগম পতিপক্ষের হামলায় আহত হন।

কৈতরী বিবি ও আব্দুল জব্বারের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় স্থানীয় লোকজন কুলাউড়া সাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

হামলার ঘটনায় কটু মিয়ার নাতি আলাউদ্দিন বাদী হয়ে পতিপক্ষের মনোয়ার হোসেন রুজেল গং সহ ৭ বিরুদ্ধে ০১ জানুয়ারী বুধবার মৌলভীবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেটের ৫ নং আমল আদালতে একটি মামলা(নং-০১/২০২০ইং) দায়ের করেন।

এডভোকেট প্রদীপ দাস মামলার বিষয়টি সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এব্যাপারে স্থানীয় কর্মধা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আতিকুর রহমান আতিক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,উভয় পক্ষের মারামারির খবর পেয়ে আমি এলাকায় না থাকায় গ্রাম পুলিশকে পাঠিয়েছি। দুপক্ষের লোকজন আহত হয়েছেন। তবে ফিরুজ মিয়ার পরিবারের লোকজন বেশি গুরুতর আহত হয়েছেন।

Comments

comments

পড়া হয়েছে 508 বার
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
x