বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথের আগমণের শতবর্র্ষ উদযাপন অনুষ্ঠান

কুলাউড়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের নিয়ে অমানবিক খেলা

স্টাফ রিপোর্টার,সংবাদমেইল২৪.কম | ০৫ নভেম্বর ২০১৯ | ৪:০১ অপরাহ্ন
অ+ অ-

কুলাউড়ায় বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুলাউড়া আগমনের একশ বছরপূর্তি অনুষ্ঠানে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের নিয়ে এক অমানবিক খেলা করেছেন অনুষ্ঠানের আয়োজক কমিটি।

(৪ নভেম্বর) সোমবার সকাল ১০টায় স্বাধীনতা স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণে আয়োজিত অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় সংগীতের পর কুলাউড়া শহরের বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের নিয়ে বের হয় এক শোভাযাত্রা। কিন্তুু এই শোভাযাত্রায় উপজেলার কোন মাধ্যমিক বিদ্যালয় বা কলেজের শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি দেখা যায়নি। শোভাযাত্রার পর শিক্ষার্থীদের নিয়ে আসা হয় স্বাধীনতা স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণে। সেখানে সকাল ১০টা থেকে বেলা দুইটা পর্যন্ত তাদের অমানবিকভাবে রাখা হয়েছে। আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে শুধু তাদের জন্য একটি টিফিন কেক দেয়া হয়েছে। পরে তারা পেটের ক্ষুধায় অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করে। আর অনুষ্ঠানের অতিথিসহ অন্যান্যদের জন্য আয়োজন করা হয়েছে বিরানি প্যাকেটের। এ নিয়ে অনুষ্ঠানে উপস্থিত সুশীল সমাজ ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।



কুলাউড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. আব্দুল কাইয়ুম বলেন, যেকোন জাতীয় অনুষ্ঠানের পাশাপাশি স্থানীয় অনেক অনুষ্ঠান এই প্রাইমারী স্কুলের শিক্ষার্থীদের নিয়ে সফল করা হয়। কিন্তুু দুঃখের বিষয় হলে সত্য যে, রবীন্দ্রনাথের আগমণের শতবর্ষ অনুষ্ঠানে আয়োজক কমিটি এই শিক্ষার্থীদের যথাযথভাবে মূল্যায়ন করতে পারেননি। বাচ্চাদের অমানবিকভাবে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করা হয়েছে। তাদের টিফিন কেক ছাড়া কোন অ্যাপায়ন করা হয়নি। আমরা বিদ্যালয়ে নিয়ে নিজ উদ্যোগে তাদের অ্যাপায়িত করেছি।

অনুষ্ঠান উদযাপন পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক মইনুল ইসলাম শামীম বলেন, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য শুধুমাত্র নাস্তার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। তাদের স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে তাদের অ্যাপায়িত করানো হয়েছে। দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে অনুষ্ঠানের অতিথি, শিক্ষকবৃন্দ ও দ্বিতীয় পর্বে অংশ নেয়া কলেজ ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. আইয়ুব উদ্দিনের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি তবে সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. মামুনুর রহমান বলেন, আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে শুধুমাত্র শোভাযাত্রার জন্য প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নেয়া হয়েছে। কিন্তুু অনুষ্ঠানস্থলে তাদের দীর্ঘক্ষণ বসিয়ে রাখা ঠিক হয়নি এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের সাথে কথা বলতে অনুরোধ করেছেন।

Comments

comments

পড়া হয়েছে 308 বার
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত